বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০:৫৯ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

যাদের পেটে ভাত জোটেনা তাদের কী শীত লাগে ভাই?

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৪

b44018ডেস্ক : চেহারা দেখলেই বুঝতে বাকি থাকে না মা ও শিশু দু’জনেই পুষ্টিহীনতায় ভুগছেন। নাম আলেয়া খাতুন, জীবীকার সন্ধানে সুদূর খুলনা থেকে রাজধানী ঢাকায় এসেছেন তিনি। স্বামী অসুস্থ রিকশা চালক। তাই নিজেই বাসা-বাড়িতে কাজ করে তিন সন্তানসহ পরিবারের পাঁচ সদস্যের মুখে দু’মুঠো অন্ন তুলে দেয়ার প্রাণান্তর চেষ্টায় ব্যস্ত। তার ওপর কোলে শিশু সন্তান থাকায় সবদিন কাজে যেতে পারেন না। এমনই অবস্থায় তার কাছে জানতে চাওয়া হলো এবারের শীতের প্রকোপ থেকে রক্ষা পেতে বাড়তি কোন ব্যবস্থা নিতে পেরেছেন কী না?

পাল্টা প্রশ্ন ছুড়ে দিতে কালবিলম্ব না করে বললেন, যাদের পেটে ভাত জোটেনা তাদের কী শীত লাগে ভাই? প্রকৃতিতে শীত আসার সঙ্গে সঙ্গে নগরবাসি যার যার সামর্থ মতো কিনতে শুরু করেছেন শীতের পোশাক। মিরপুর এক নম্বরে মুক্ত বাংলা মার্কেটের পাশের এক গলিতে দেখা গেল দেশে তৈরি ছাড়াও বিভিন্ন দেশ থেকে গাইট বাঁধা অবস্থায় নতুন ও পুরাতন শীতবস্ত্র এনে পাইকাররা বিক্রি করছেন খুচরা বিক্রেতার কাছে। ব্যবসায়ীরাও একটু লাভের আশায় নিজের দোকানে তুলেছেন বিভিন্ন দামের নানান ডিজাইনের বাহারী রকম আর নানা রংয়ের শীতবস্ত্র। ফুটপাতে ও ভ্যানগাড়ি বা ছোট ছোট দোকানে হরেক রকম শীতের পোশাকের পশরা সাজিয়েছেন দোকানীরা। ব্যবসায়ীরা শীতের পোশাক বেচতে পেরে যেমন খুশি, তেমনি খুশি ক্রেতারাও।

কিন্তু বাহারী ডিজাইনের এসব শীতের পোশাক নজর কাড়েনা কেবল আলেয়ার। ক্রয়ক্ষমতা না থাকায় তার কাছে শীতের পোশাকের চেয়ে দু’মুঠো অন্নের মূল্য অনেক বেশি। রিকশা চালক বাবলু, বগুড়া থেকে জীবীকার সন্ধানে ঢাকায় এসে প্রায় পাঁচ বছর ধরে রাজধানীর বিভিন্ন অঞ্চলে রিকশা চালিয়ে আসছেন। তার কাছে শীত গ্রীষ্ম সবই সমান। রাত-দিন হাড়ভাঙা খাটুনি করে চার সন্তানসহ ছয় সদস্যের সংসার কোন রকম পরিচালনা করেন তিনি। অর্থের অভাবে পরিবারের জন্য শীতের পোশাক কিনতে না পেরে অন্যের কাছ থেকে চেয়ে চিন্তে কোন মতে শীত পার করেন বাবলু। দৈনিক রোজগারের কথা জিজ্ঞেস করতেই তিনি বললেন, ঢাকা শহরে মানুষের তুলনায় রিকশার সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় বর্তমানে রোজগার তেমন নেই। কোন রকম পরিবার পরিজন নিয়ে বেঁচে আছি।

তাছাড়া অনেক প্রধান সড়কে তারা আর আগের মত রিকশা চালাতেও পারেন না তারা। পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী সবজি ব্যবসায়ী কিরণ জানালেন, নিজের একটা শীতের পোশাক থাকলেও বৃদ্ধ বাবা-মা ও ছোট ভাই-বোনদের জন্য এখনো শীতবস্ত্র কিনতে পারিনি। কারণ যেখানে ব্যবসা করতেন তিনি সেখানে বর্তমানে পুলিশের উচ্ছেদ অভিযানে ব্যবসা বন্ধ আছে। ফলে রোজগার না থাকায় শীতবস্ত্রের চেয়ে পরিবারের সদস্যদেরকে বাঁচিয়ে রাখাতে দু’মুঠো ভাত সংগ্রহই তার কাছে এখন অনেক কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!