বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০:৪১ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

সিলেট-ছাতক রেল পথে ট্রেন চলাচল বন্ধ,কবে চালু হবে তা জানেন না কর্তৃপক্ষ

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ১২ এপ্রিল, ২০১৫

7858মোঃ আবুল কাশেম,বিশ্বনাথ প্রতিনিধি : নিরাপত্তাজনিত কারণে ৩ মাস ধরে যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে সিলেট-ছাতক রেল লাইনে। ফলে দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে জনসাধারনকে। কবে নাগাদ ট্রেন চলাচল হবে তা জানেন না কর্তৃপক্ষ।

 

ফলে এই লাইনে ট্রেন চলাচল অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের ৫জানুয়ারী থেকে নিরাপত্তাজনিত কারণে জিআরপি পুলিশের রিপোর্টের ভিত্তিতে ট্রেনের বগি ও ইঞ্জিন ইর্মাজেন্সি সাটল-এ রাখা হয়েছে। মাঝে মধ্যে সিলেট-ছাতক লাইনে মালবাহী ট্রেন চলাচল করলেও একেবারেই বন্ধ রয়েছে যাত্রীবাহী ট্রেন। গত ৫জানুয়ারীর পর থেকে এই লাইনে নিরাপত্তার জন্য অনেক নিরাপত্তা কর্মী (আনছার) নিয়োগ দেওয়া হয়। এরপরও নিরাপত্তারজনিত কারণে ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে বলে রেলওয়ের সিলেট ষ্টেশন মাস্টার জানান।

 

এছাড়া সিলেট-ছাতক লাইনের ষ্টেশন মাস্টার নেই।জানা যায়, সিলেট হতে ছাতক পর্যন্ত প্রায় ৩৫ কিঃমিঃ দীর্ঘ রেলপথটি ১৯৫৬ সালে নির্মাণ করা হয়। নির্মাণ করার পর হতে রেলগাড়ি আপন গতিতে তার যাত্রা শুরু করে।উক্ত লাইনে ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত ট্রেন যাত্রীদের সেবায় একনিষ্ট ছিল। টেধনে প্রায় ৪৫ মিনিটে ছাতক হতে সিলেট পৌছতে পারতেন যাত্রীগন। সিলেট হতে ছাতক পৌছতে ট্রেন পতিমধ্যে দু’টি ষ্টেশনে (আফজালাবাদ ও খাজাঞ্চীগাঁও) যাত্রাবিরতি করে। ছাতক, আফজালাবাদ ও খাজাঞ্চীগাঁও উ৩ তিনটি রেলষ্টেশনের পাশ্ববর্তী এলাকার হাজার হাজার যাত্রী সিলেট শহরে পৌছতে একসময় এই ট্রেনই ছিল যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যম।

১৯৮৫ সাল থেকে ওই রেলপথে মন্দাভাব দেখাদেয়। নির্দিষ্ট সময়ে ট্রেন যাত্রা শুরু করে না, যার কারনে যাত্রীসাধারন সময়মত গন্তবে ̈ পৌছতে পারেন না। শিল্প নগরী ছাতক থেকে চুনা পাতর, সিমেন্ট, ি ̄øপার, বালু, বোল্ডার ও ভাঙা পাতর দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হয় রেলপথে।বর্তমানে এ লাইনের বেহাল দশা। অকেজো ি ̄øপার, মেয়াদ উর্ত্তীণ বগি, পর্যাপ্ত পাতরের অভাব এবং যথাসময়ে প্রয়োজনীয় মেরামত না করায় এ রোডে যাত্রীবাহী ও মালবাহী ট্রেন শুকনো মৌসুমে লাইনচু ̈ত হওয়ার ঘটনা কম ঘটলেও বর্ষা মৌসুমে অহরহ ট্রেন লাইনচু ̈ত হয়। দেশের বেশীরভাগ পাতর ̄øীপার ছাতক থেকে সরবরাহ হলেও এ অঞ্চলের রেললাইনে পাতর নেই।যাত্রীসাধারনের যাথায়াতের জন ̈ দু’টি জরাজীর্ণ বগি দেওয়া হয় হতো। যা বিদু ̈ৎ নেই, পানি নেই, ভাঙা সিট, দরজা-জানালা নেই এবং ময়লা আবর্জনায় ভর্তি।

 

আবার যাত্রীবাহী ট্রেনের সাথে মালবাহী বগি জোড়া দেওয়া হয়। তখন গাড়ী লাইনচু ̈ত হয়। দূর্ঘটনায় পতিত হয়। এরপরও যাতায়াত খরছ কম হওয়ায় এই লাইনে যাত্রীরা ট্রেন চলাচলে অনেকটা সুবিধাজনক মনে করতেন।

 

শীত মৌসুমে খাজাঞ্চী ও আফজালাবাদ এলাকা থেকে প্রচুর সবজি দেশের বিভিন্ন জায়গায় বাজারজাত হয়। আর ব্যবসায়ীরা এসব সবজি পরিবহন খরচ কম হওয়ায় রেলপথে সিলেট শহরে বাজারজাত করতেন। কিন্ত গত তিন মাস যাবৎ ট্রেন চলাচল না করায় সাধারন মানুষ ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা পড়েছেন বিপাকে। পোহাতে হচ্ছে অনেক কষ্ট।

 

এ ব্যাপারে সিলেট রেলওয়ে ষ্টেশন মাস্টার কাজী শহিদুর রহমান বলেন, নিরাপত্তার কারণে গত ৫জানুয়ারী থেকে সিলেট-ছাতক লাইনে ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে। জিআরপি পুলিশের রিপোর্টের ভিত্তিতে ট্রেন ইঞ্জিন ও বগি ‘ইমারজেন্সি সাটল’ এ রাখা হয়েছে। এই লাইনে কতজন নিরাপত্তা কর্মী (আনছার) নিয়োগ দেওয়া হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এসব জিআরপি থানার ওসি বলতে পারবেন। কবে নাগাদ এই লাইনে ট্রেন চালু হতে পারে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, সিলেট-ছাতক সেকশনের দায়িত্বে থাকা মাস্টার নেই। কবে ট্রেন চালু হবে তা তিনি বলতে পারছেন না।

 

এ ব্যাপারে এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সিলেট জিআরপি থানার ওসি আলমগীর হোসেন কে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কয়েকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে, তিনি ফোন রিসিভ করে বলেন তিনি একটি মিটিং এ রয়েছেন। কখন তার সাথে যোগাযোগ করলে তথ্য জানা যাবে এমন প্রশ্নে জবাবে তিনি বলেন এসব নিউজ করে কি হবে? এরপর তিনি লাইন কেটে দেন।

 

উল্লেখ্য, সিলেট-ছাতক রেলপথকে উন্নত ও যথাসময়ে ট্রেন সার্ভিস চালুর দাবিতে অনেকবার ট্রেন অবরোধ করা হয়।বহুবার দেয়া হয় রেলওয়ের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ পক্ষের কাছে লিখিত আবেদন।সর্বশেষ ২০০৭ সালের ২ শে এপ্রিল জিআইবিআর ওই রেললাইন পরিদর্শনে এলে তার সুপারিশের মাধ্যমে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে খাজাঞ্চীগাঁও রেলষ্টেশনের ২০০যাত্রী আবেদন করেন।এরপর কোন ফল আসেনি। ৩মাস থেকে ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে।শেষ পর্যন্ত আদৌ কি এই লাইনে আর ট্রেন চলাচল করবে? এই প্রশ্ন জনসাধারনের।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!