সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১০:২৬ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

বিশ্বনাথে দশম শ্রেণীর ছাত্রীকে হত্যার অভিযোগ

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ৭ মে, ২০১৫

???????????????????????????????মোঃ আবুল কাশেম,বিশ্বনাথ প্রতিনিধি : সিলেটের বিশ্বনাথে রাগীব-রাবেয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজের ১০ম শ্রেণীর ছাত্রী রিনা বেগমকে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

 

উপজেলার লামাকাজী ইউনিয়নের আতাপুর গ্রামের মঈন উদ্দিনের বাড়িতে মঙ্গলবার ঘটনাটি ঘটে। ঘটনার পর থেকে মঈন উদ্দিনের বৃদ্ধা মা বিবিজান বেগম ছাড়া পরিবারের সবাই পলাতক রয়েছেন। গতকাল বুধবার পোস্টমর্ডেম শেষে মরহুমের লাশ দাফন করা হয়েছে।

 

এব্যাপারে স্কুল ছাত্রী রিনা বেগমের পিতা আবদুল করিম বাদী হয়ে মামলা দায়েরের প্রস্ততি চলছে।

 

বিশ্বনাথে থানায় গাড়ির গ্যারেজ দাতা, প্রভাবশালী বিএনপি নেতা ও উপজেলার জাগিরালা গ্রামের বাসিন্দা ফরিদ আহমদ তাঁর চাচা বোন হাজেরা বেগমের দেবর অভিযুক্ত মঈন উদ্দিন ও তাঁদের পরিবারের সদস্যদের নিজ আশ্রয়-প্রশ্রয়ে রেখে এঘটনা (হত্যা) থেকে তাঁদেরকে রক্ষা করার নানান পায়তারা করছেন বলে অভিযোগ করেছেন নিহত স্কুল ছাত্রীর পরিবারের সদস্যরা। এদিকে স্কুল ছাত্রী হত্যার ঘটনার সাথে জড়িত ৬ জনের নামের তালিকা পুলিশের কাছে দিতে চাই পুলিশ তা নেয়নি বলেও অভিযোগ পরিবারের।

 

স্থানীয় ও নিহতদের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার সকাল আনুমানিক ১১টার দিকে মঈন উদ্দিন তাঁর সাত বছরের ভাতিজি ইমারকে খবর পাঠিয়ে রিনাকে তাঁদের বাড়িতে (মঈন) আনেন। এরপর মঈন উদ্দিনের শয়ন কক্ষে ডেকে নিয়ে তাঁকে (রিনা) হত্যা করে আত্যহত্যার নাটক মঞ্চস্থ করেন। ঘটনার অনেক পরে মঈন উদ্দিনের পরিবারের সদস্যরা রিনার পরিবারের সদস্যদেরকে তাঁর (রিনা) মারা যাওয়ার খবর দেন।

 

রিনার পরিবারের সদস্যরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে দেখতে পান তাঁর (রিনা) লাশ মঈন উদ্দিনের শয়ন কক্ষে মেঝেতে পড়ে আছে। এসময় মঈন উদ্দিনের বিছানা চাদর দ্বারা স্কুল ছাত্রী রিনার দেহ আবৃত ছিল।

 

নিহত স্কুল ছাত্রী রিনার ভাই লিলু মিয়া বলেন, প্রায় ৩মাস পূর্বে দুবাই থেকে দেশে আসে মঈন উদ্দিন। দেশে আসার পর থেকে মঈন উদ্দিন প্রায়ই আমাদের ঘরে থাকা মোবাইলে (০১৭৯৮-৩৮৬৩৮৮) তাঁর ব্যক্তিগত মোবাইল (০১৭২২-৮৭৫৫২৫) থেকে কল দিয়ে ডিস্টাব দিত। বার বার তাঁকে না করা হলেও সে আমাদের কথা শুনেনি। সপ্তাহ খানেক পূর্বে আমি রাগ করে তাঁকে বলি আর মোবাইলে কল দিয়ে ডিস্টাব দিলে তাঁর হাত-পা ভেঙ্গে দেব।

 

এসময় সে আমাকে জানায় আমি তাঁকে কিছু করার পূর্বে সে আমাকে (লিলু) দুনিয়া থেকে শেষ করে দিবে। আমার কিছু করতে না পেরে আমার বোনটাকে মেরে ফেলল।

 

হত্যার অভিযোগ মিথ্যা দাবি করে অভিযুক্ত মঈন উদ্দিন বলেন, ঘটনার সময় ব্যক্তিগত প্রয়োজনে আমি বাজারে (প্রীতিগঞ্জ) ছিলাম। সে আমাদের বাড়িতে এসে কি কারণে আত্যহত্যা করেছে আমি জানিনা।

 

তবে পহেলা বৈশাখের সময় একদিন আমার সাথে ফোনে কথা বলার কারণে রিনাকে তাঁর বাবা-ভাই মারধর করে ছিলেন। একারণে সে (রিনা) আমাকে নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার কথাও জানিয়ে ছিল। এনিয়ে অনেক সমস্যাও হয় বাড়িতে। এরপর আমার পরিবার থেকে বাঁধা আসলে আমি তাঁর সাথে আর কোন কথাও বলিনি এমনকি তাঁদের বাড়িতেও যাইনি।

 

মঈন উদ্দিনের বৃদ্ধা মা বিবিজান বেগম বলেন, ঘটনার সময় আমার ছেলে (মঈন) বাড়িতে ছিলনা। সে তাঁর বন্ধু আজরায় গ্রামের শহীদের সাথে বাইরে ছিল। আমার নাতিন ইমাও বাড়িতে ছিলনা। সেও তাঁর নানা বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে ছিল। রিনা যে তাঁদের বাড়িতে এসেছে তিনি তা দেখতে পারেননি। মঈন উদ্দিনের খোঁজ করতে তাঁর ঘরে গিয়ে দেখেন রিনা আত্যহত্যা করেছে। এরপর তিনি রিনা পরিবারের সদস্যদেরকে খবর দেন।

 

রিনার পার্শ্ববতি বাড়ির বাসিন্দা রাজিয়া বেগম বলেন, রিনা গোসল করার জন্য পুকুরে এসে ছিল। এমন সময় মঈন উদ্দিনের ভাতিজি ইমা এসে রিনাকে তাঁদের বাড়িতে ডেকে নিয়ে গেছে। তিনি (রাজিয়া) এসময় পুকুর পাড়ে থাকায় তা দেখেছেন বলে এই প্রতিবেদককে জানান।

 

রিনার পিতা আবদুল করিম বলেন, ঘটনার সময় আমি মঈন উদ্দিনের বাড়ির উঠান দিয়েও অনেক বার আসা যাওয়া করেছি। কিন্তু তাঁরা (মঈনের পরিবার) কেউ আমাকে কিছু বলেনি। আমার মেয়েটাকে পরিকল্পিতভাবে সবাই মিলে হত্যা করেছে। আমার মেয়ে হত্যার সঠিক বিচার চাই। পুলিশের কাছে হত্যাকারীদের নাম দিতে চাইলেও পুলিশ আমাদের দেওয়া নামগুলি তালিকাভূক্ত করেনি। শুধু একটি কাগজে আমার স্বাক্ষর নিয়েছে।

 

অভিযুক্তদের আশ্রয়-প্রশয় দেওয়ার কথা অস্বীকার করে ফরিদ আহমদ বলেন, মঙ্গলবার রাতে আমি বিষয়টি শুনেছি। মঈন উদ্দিন বা তাঁর ভাইদের আমি ছিনিনা। আমরা লামাকাজী বাজারে বাসায় থাকি, গ্রামের বাড়িতে থাকিনা। গ্রামের সম্পর্কে চাচাত বোনের হাজেরার বিয়ে হয়েছে জানি, কিন্তু কার সাথে হয়েছে জানিনা। আমি কোন দিন তাঁদের বাড়িতেও যাইনি।

 

বিশ্বনাথ থানার এসআই আনোয়ার হোসেন বলেন, প্রাথমিকভাবে এব্যাপারে থানায় অপমৃত্যু মামলা দায়ের হয়েছে। পোস্টমর্ডেম রির্পোট পাওয়ার পর এব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!