শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:৩১ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

বাদীর অভিযোগ : আরএমও মহসিন ১২ লাখ টাকায় হত্যাকে বানিয়ে দিলেন আত্মহত্যা

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: শুক্রবার, ২৯ মে, ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নবীগঞ্জে আলোচিত মা ও ২ শিশুর মৃত্যুর ময়না তদন্ত নিয়ে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে দিনভর নাটক শেষে ফের ময়না তদন্ত হয়েছে। তবে মামলার বাদীর অভিযোগ মোটা অংকের টাকা খেয়ে আরএমও মহসিন এ নাটক শুরু করেছেন। বাদী আরও জানান- লাশ সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজে নিয়ে ময়না তদন্তে করলে সত্য ঘটনা রেড়িয়ে আসত। কিন্তু আরএমও মহসিন করিম তা দেননি। রহস্যজনক কারণে তিনি এখানেই ময়না তদন্ত করেছেন। ২ মাস পর গত বুধবার নবীগঞ্জেরন মাহমুদপুর গ্রামের কবরস্থান থেকে পুনরায় ময়না তদন্তের জন্য কবর থেকে এই লাশ উত্তোলন করা হয়। এদিকে বাদীর অভিযোগ আরএমও ডাক্তার মহসিন করিম ১২ লাখ টাকার বিনিময়ে হত্যা কে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দিয়েছেন।
জানা যায়, গত বুধবার আদালতের নিদের্শে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হবিগঞ্জ গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) এসআই মোহাম্মদ ইকবাল বাহারকে সাথে নিয়ে হবিগঞ্জের নিবার্হী ম্যাজিস্ট্রেট শাহরিয়ারের উপস্থিতিতে নবীগঞ্জ উপজেলার বড় ভাকৈর গ্রামের কৃষক ফরিদ মিয়ার স্ত্রী রুমেনার লাশ উত্তোলন করা হয়। পরে লাশ হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়। কিন্তু বাদী গতকাল হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে ময়না তদন্ত করতে আপত্তি জানায়। কিন্তু বাদীর আপত্তি উপেক্ষা করে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গেই লাশের ময়না তদন্ত হয়। পরে গতকাল বিকেলে অর্ধগলিত লাশ নিয়ে বাড়ী ফিরে যান নিহতের পরিবার। লাশের স্বজনরা জানায়- আগামী রবিবার আদালতের আবেদন করে ওই লাশ সিলেটে নিয়ে যাবে। এর আগে সে লাশ দাফন করবে না। তিনি আক্ষেপ করে হাসপাতালে সাংবাদিকদেরকে বলেন- ডাক্তার মহসিনের কাছে তিনটি লাশের মৃল্য মাত্র ১২ লাখ টাকা। একারণেই সে এ রমক একটি হত্যাকে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেবার চেষ্টা চালাচ্ছে। এ ব্যাপারে আরএমও মহসিন করিমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন- বিষয়টি মিথ্যা। যা সত্যি তাই আমি রিপোর্ট দিয়েছি।
উল্লেখ্য, গত ২২ মার্চ সকালে নবীগঞ্জের বড় ভাকৈর গ্রামের কৃষক ফরিদ উদ্দিনের স্ত্রী রুমেনা বেগমকে গাছের সাথে ঝুলন্ত ও তাদের ছেলে মুসা মিয়া (৭) ও মেয়ে মুসলিমা খাতুন (৫) এর লাশ বাড়ির পাশের পুকুর থেকে উদ্ধার করে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ। এনিয়ে এলাকায় ধু¤্রজালের সৃষ্টি হয়। চাঞ্চল্যকর মা, ছেলে ও মেয়ের মৃতদেহ উদ্ধারের ঘটনাটি হত্যা না আত্মহত্যা এ নিয়ে জনতার মনে নানা প্রশ্ন দানা বাঁধে। স্বামীর পরিবার রুমেনা বেগম তার দু’ সন্তানকে পুকুরে ফেলে হত্যা করে নিজে আত্মহত্যা করেছে বলে দাবী করে। তবে রুমেনার পিত্রালয়ের লোকজন তাদের এ দাবী মানতে পারেনি। তারা দাবী করেছেন পারিবারিক কলহের কারনে রুমেনাসহ অবুঝ দু’ সন্তানকে স্বামী ও তার বাড়ির লোকজন পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। এ ঘটনায় নিহতের স্বামী ফরিদ মিয়াকে গ্রেফতার করে পুলিশ।
এ ঘটনায় রুমেনা বেগমের চাচা বাদী হয়ে নবীগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করার পর কাজের লোক আবুল হোসেন ব্যাতিত অন্য কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। নিহতের পরিবার আসামী গ্রেফতারে অবহেলার অভিযোগ তুলেন তদন্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। ইতিমধ্যে নিহতের ময়না তদন্ত রির্পোটে আত্মহত্যার আলামত আসলে বাদী বিজ্ঞ আদালতে ওই রির্পোটের উপর অনাস্থার আবেদন করে পুণঃরায় ময়না তদন্তের দাবী জানান। বর্তমানে মামলাটি হবিগঞ্জের গোয়েন্দা শাখা (ডি.বি) পুলিশ তদন্ত করছেন। এদিকে আবেদনের প্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালত রুমেনার মৃতদেহ উত্তোলন করে পূণঃরায় ময়না তদন্তের জন্য গত ২৬ এপ্রিল আদেশ দেন। আদেশ প্রাপ্তির প্রেক্ষিতে গতকাল বুধবার দুপুরে নিহতের পিতার বাড়ি মামদপুর কবরস্থান থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।
এলাকাবাসী সূত্রে জানাযায়, গত ২১ মার্চ রাতে খাওয়া দাওয়া করে ফরিদ মিয়া ও তার স্ত্রী সন্তানরা অন্যান দিনের মতো ঘুমিয়ে পরেন। রাত অনুমান ২টার দিকে ফরিদ মিয়া দেখেন তার স্ত্রী ও সন্তানরা তার পাশে নেই। দুই সন্তান ও স্ত্রীকে পাশে না পেয়ে বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি শুরু করেন ফরিদ মিয়া। এক পর্যায়ে তিনি বাড়ির পাশে পুকুর পারে একটি জারুল গাছে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় তার স্ত্রীর ঝুলন্ত মৃতদেহ দেখতে পান। তারপর পাশেই বাড়ির পুকুরে দুই সন্তানের মৃতদেহ পানিতে ভাসতে দেখেন তিনি। এ সময় তার সুর চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসেন। খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মৃতদেহ তিনটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য হবিগঞ্জ মর্গে প্রেরন করেন। দুই সন্তানসহ মা‘য়ের মৃত্যু নিয়ে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। লোকজনের মধ্যে শুরু নানা আলোচনা-সমালোচনা।
এদিকে রুমেনার স্বামী ফরিদের দাবি, রুমেনা মানসিক রোগে আক্রান্ত ছিলেন। রাতে তিনি ঘুমিয়ে পড়ার পর সন্তানদের পুকুরে ফেলে নিজে আত্মহত্যা করেন।
অপর দিকে রুমেনার বাবা উপজেলার গজনাইপুর ইউনিয়নের মামদপুর গ্রামের মাসুক মিয়া দাবী করেছিলেন দীর্ঘ দিন ধরে তাদের দাম্পত্য কহল চলে আসছিল। প্রায় ২মাস আগে দাম্পত্য কহলের জের ধরে রুমেনা ও তার দুই সন্তান নিয়ে বাবার বাড়ি আটক ছিল। এক পর্যায়ে শালিসে মিমাংসার মাধ্যমে স্বামীর বাড়ি ফিরে আসে। রুমেনার বাবা ও তাদের আত্মীয় স্বজনদের দাবী রুমেনার স্বামী ফরিদ মিয়া ও তার স্বজনরা তাদেরকে হত্যা করে আত্মহত্যার নাটক তৈরী করেছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!