রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ০৫:০৭ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

শৈশবের ঈদ স্মৃতি – মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ২৮ এপ্রিল, ২০২২

বয়স বাড়ার সাথে সাথে মানুষের স্মৃতির পাতা ক্রমশই ঝাপসা হয়ে আসে। তবে কিছু কিছু স্মৃতি থাকে যা স্মরণের খাতায় লেপ্টে থাকে আজীবন।

এমনই একটা স্মৃতি শৈশবের ঈদ স্মৃতি। বার্ষিক এ উৎসবটি ইসলাম ধর্মীয় ও মুসলিমদের হলেও ঈদ সব সময়ই সব ধর্মের সব বয়সের মানুষকে ভিন্ন এক নির্মল আনন্দ এনে দেয় এটি। পবিত্র রমজান মাস এলেই সেহরীর সময় ঘুম থেকে উঠা ও সেহরী খাওয়ার বিধি-নিষেধের কথা মনে পড়ে।

বাবা আমাদের ঘুম থেকে উঠার পক্ষে থাকলেও মা ছিলেন বিপক্ষে। কান্নাকাটি করে সেহরী খাওয়ার সুযোগ পেলেও রোজা রাখার উপর ছিল নিষেধাজ্ঞা। বলা হতো কলসির ভিতরে হা করে রোজা রেখে এসে ভাত খেলেই ছোটদের রোজা হয়ে যায়! রোজা না রাখলেও ইফতার করতাম সবার সাথে। বড়দের সাথে আজানের অপেক্ষা করতাম ইফতারের জন্য। তবে ইফতারীতে আজকালের মতো এতো বেশি খাদ্যসামগ্রী থাকতো না।

ঈদ কার্ড ছিল আমাদের ছোট বেলার ঈদের অন্যতম অনুষঙ্গ। বন্ধুদের মধ্যে ঈদকার্ড বিনিময় হতো হাতে হাতে কিংবা ডাকের মাধ্যমে। রং-বেরঙ্গের নানা রকম কার্ড ছিল দাম অনুযায়ী। মহিলারা ঘরের কাপড়-চোপড় ধুয়ে দিতেন ঈদের সময়। গ্রামের প্রায় বাড়ীই ছিল তখন কঁাচা মাটির তৈরী। মহিলারা মাটি দিয়ে ঘর লেপ দিতেন। কেউ কেউ লেপের মধ্যে নকশাও আঁকতে পারতেন।

ঈদ মানেই ছিল স্বন্দেশ পিঠা আর জালি পাপড়ার উৎসব। সব ঘরেই গুড় এবং চালের গুড়ি দিয়ে মা-চাচীরা ঈদের আগের রাতেই স্বন্দেশ পিঠা বানাতেন। চালের গুড়ি দিয়ে নকশা করে তৈরী করা হতো দৃষ্টিনন্দন পাপড়া।

বাবা-চাচারা ঈদের দিন গরু-ছাগল ধুয়ানো নিয়ে ব্যস্ত হতেন ঈদের আগেই। গাছের মেহেদী হাতে লাগানো ছিল অন্য রকম অনুভূতির বিষয়। যে বাড়িতে মেহেদী গাছ ছিল সে বাড়ীর চাচীর কাছে সবাই যেতো পাতার জন্য। গাছের শেষ পাতাটি পর্যন্ত ছিড়ে নেয়া হতো ঈদে।

আমাদের পুরো গ্রামে রেডিও ছিল মাত্র দুটি। লোকজন রেডিওর কাছে গিয়ে বসে থাকতেন ঈফতারের আজান শুনার জন্য। ঈদের চাঁদ দেখার মজাই ছিল আলাদা। দল বেঁধে চাঁদ দেখতাম আমরা। আমাদের গ্রামে তখন অবস্থা সম্পন্ন পরিবার ছিল খুবই কম। নতুন জামা কাপড় সবাই কিনতে পারতো না। পুরাতন কাপড়ে ঈদ ইস্ত্রি দিয়ে পরতেন অনেকেই। লন্ড্রিতে ভীড় লেগে যেতো। সাদা কাপড়ে দেয়া হতো নীল।

ঘর-বাড়ী পরিস্কার হয়ে যেতো আমরা ঘুমথেকে উঠার আগেই। সকালে ঘুম থেকে উঠেই গোসল করে দল বেঁধে বড়দের সাথে ঈদগাহে যাওয়ার দৃশ্য ছিল নান্দনিক। বড় ঈদগাহ। আশপাশের তিন-চার গ্রামের মুসল্লীরা জড়ো হতেন ঈদগাহে। নামাজ শেষে চাঁদর দিয়ে টাকা তোলা হতো হুজুরের জন্য। ঈদ সালামীর প্রচলন থাকলেও বিষয়টি আজকের মতো সার্বজনীন ছিল ছিল না । সালামী না পেলেও আমরা ঘরে ঘরে দল বেঁধে গিয়ে বড়দের সালাম করতাম।

ঈদের দাওয়াত একটা বড় বিষয় ছিল তখন। বিশেষ করে জামাইদের বাড়ীতে গিয়ে দাওয়াত দেওয়া হতো। ঠিক মতো দাওয়াত না পেলে জামাইরা রাগ করতেন। জামাইদের শ্বশুর বাড়ীতে যাওয়ার এবং ঈদ সালাম করার একটা রুসুম ছিল। সম বয়সীরা ঈদের দিন বিকেলে দলবেঁধে ঘুরে বেড়াতেন কিংবা ফুটবল খেলতেন। বিটিভি ছিল তখন একমাত্র বিনোদন মাধ্যম। যে বাড়ীতে সাদা-কালো টিভি থাকতো সে বাড়ী ঘরে ছেলে-বুড়ো সবাই ভীড় জমাতো অনুষ্ঠান দেখার জন্য।

গ্রামের বেশির ভাগ মানুষ ছিলেন গরীব সবাই ফিতরা দিতে পারতেন না। তবুও ধনীরা সাধ্য মতো ফিতরা দিয়ে গরীবদের ঈদের আনন্দে শরীক করতেন। আজকালের মতো তখন ঈদ পুনর্মিলনীর সংস্কৃতি ছিল না বললেই চলে। মোবাইল,সেলফি না থাকলেও রিলের ক্যামেরা ব্যবহার করা হতো ছবির জন্য।

কয়েকজন মিলে একটা রিলের টাকা দিয়ে কেনা হতো সখের রিল। পরে রিল থেকে ছবি প্রিন্ট করা হতো শহরে গিয়ে। চ্যানেলে চ্যানেলে অনুষ্ঠান, হাতে হাতে মোবাইল, স্থানে স্থানে ইফতার পার্টি আর ঈদ পুনর্মিলনী না থাকলে ঈদে ছিল তখন প্রাণের আনন্দ। সে আনন্দে পরিবার-পরিজন, পড়শী-স্বজন, মুসলিম-হিন্দু,ধনী-গরিব, ছোট-বড় সবাই মেতে উঠতেন আনন্দ হিন্দোলে।

লেখক,

মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন,
অধ্যক্ষ,জহুর চান বিবি মহিলা কলেজ,
শায়েস্তাগঞ্জ, হবিগঞ্জ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!