বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৪৭ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

জেনে রাখুন তারাবীহ নামাজের নিয়ত, দোয়া ও মোনাজাত

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ১৮ জুন, ২০১৫

5120দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক : শুধু মাত্র রমজান মাসে এই তারাবীহ এর নামাজ পড়তে হয়। এশা’র নামাজের ২ রাকাত সুন্নত আদায় করার পরে এবং বিতর নামাজ এর আগে ২০ রাকাত তারাবীর নামাজ আদায় করতে হয়। যদিও তারাবীহ নামাজের নিয়ত, দোয়া ও মোনাজাত অনেকেই জানেন, তার পরেও আরো একবার ভালো ভাবে দেখে নিন।
তারাবীর নামাজের নিয়ত

বাংলায়:-নাওয়াইতু আন উসাল্লিয়া লিল্লা-হি তা আলা রাকয়াতাই সিলাতিৎ তারাবীহী সুন্নাতু রাসূলিল্লা-হি তাআলা মুতাওয়াজিহান ইলা জিহাতিল কাবাতিশ শারীফাতি আল্লাহু আকবার।)
(প্রত্যেক চারি রাকায়াত নামায পড়বার পর নিম্নলিখিত দোয়া তিনবার পড়িবে।)

 

তারাবীহ নামাজের দোয়া:-

বাংলায়:-সুবহানা জিল মুলকি ওয়াল মালাকুতি সুবহানা জিল্ ইজ্জাতি ওয়াল আজমাতি ওয়াল হায়বাতি ওয়াল কুদরাতি ওয়াল কিবরিয়ায়ি ওয়াল জাবারুতি সুবহানাল মালিকিল হাইয়্যিল্লাজি লা ইয়ানামু ওয়ালা ইয়ামুতু আবাদান আবাদান সুব্বুহুন কুদ্দুসুন রাব্বানা ওয়া রাব্বুল মালা-ইকাতি ওয়াররুহ।)
(প্রত্যেক চার রাকয়াত নামাযের পর এই মোনাজাত পড়িতে হইবে।)

 

তারাবিহ নামাজের মোনাজাত:-

বাংলায়:-আল্লা-হুম্মা ইন্না নাস আলুকাল্ জান্নাতা ওয়া নাউজুবিকা মিনান্নারি ইয়া খালিকাল জান্নাতা ওয়ান্নারি বিরাহমাতিকা ইয়া আজীজু, ইয়া গাফ্ফারু, ইয়া কারীমু, ইয়া সাত্তারু, ইয়া রাহিমু ,ইয়া জাব্বারু ইয়া খালেকু, ইয়া রাররূ, আল্লাহুমা আজির না মিনান্নারি, ইয়া মূজিরু ইয়া মুজিরু, বিরাহ্মাতিকা ইয়া আরহামার রাহিমীন।)

রোজার নিয়ত

হে আল্লাহ! আমি আগামীকাল পবিত্র রমজানের রোজা রাখার নিয়ত করছি, যা তোমার পক্ষ থেকে ফরজ করা হয়েছে। সুতরাং আমার পক্ষ থেকে তা কবুল করো, নিশ্চয়ই তুমি সর্বশ্রোতা ও সর্বজ্ঞ।

 

ইফতারের দোয়া

হে আল্লাহ! আমি তোমার জন্য রোজা রেখেছি এবং তোমার রিজিক দ্বারা ইফতার করছি।

তারাবীর নামাজের উদ্দেশ্য, তাত্পর্য ও ফজিলত

রমযান মাসেই সালাতুল তারাবীহ নামায আদায় করা হয়। নিয়ম অনুযায়ী ২০ (বিশ) রাকাত নামাযের মাধ্যমে প্রথম সাতদিনে দেড় পারা এবং পরবর্তী বিশ দিনে একপারা করে সাতাশ দিনে পুরো ৩০ (ত্রিশ) পারা কোরআন শরীফ পাঠ করা হয়ে থাকে। এর উদ্দেশ্য, তাত্পর্য ও ফজিলত সম্পর্কে আল্লাহতায়ালার ঘোষনা হচ্ছে ” রমযান মাস হচ্ছে সে মাস যে মাসে নাযিল হয়েছে কোরআন। যা মানুষের জন্য হেদায়েত এবং সত্য পথযাত্রীদের জন্য সুস্পষ্ট পথ নির্দেশ আর ন্যায় অন্যায়ের পার্থক্য বিধানকারী” সূরা বাক্কারা, আয়াত ১৮৫। উল্লেখিত আয়াতদ্বারা সুষ্পষ্টভাবে প্রমানিত হয় যে, ৩০ পারা কুরআনে মানবজাতির কল্যান নিহিত। কোরআনে সমগ্র মানবজাতির জীবন ব্যবস্থা কি হওয়া উচিত তা পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে বর্ননা করা হয়েছে। বর্ণনা করা হয়েছে কি কি গ্রহণীয়, কি কি বর্জনীয়। কি ন্যায় কি অন্যায়। কোন কোন কাজ করা হারাম এবং মানুষের জন্য কি কি হালাল। কোন কোন কাজের জন্য সে কি কি শাস্তি ভোগ করবে এবং আমল ভাল হলে সে কি কি পুরষ্কার পাবে। এ ছাড়া সকল কাজের হিসাব তিনি মহা বিচারক হিসেবে আখেরাতের দিবসে গ্রহণ করবেন। কাজেই সমগ্র বিষয়াবলীই যেন মানুষ জ্ঞাত হয়ে ভাল মন্দের পার্থক্য অনুধাবন করে জীবন ব্যবস্থা গড়ে তুলতে পারে সেজন্যই ৩০ পারা কোরআন পাঠের মাধ্যমে সালাতুল তারাবী নামায আদায় হয়ে থাকে। কাজেই মানুষ জাতিকে সচেতন করাই্ হচ্ছে তারাবী নামাযের প্রকৃত উদ্দেশ্য। এক রমযানের পর আরেক রমযানে এসে আবারও মানুষকে সচেতন করা হয়ে থাকে। সে কি কি ভুলে গিয়েছিল ঐগুলো যাতে সংশোধন করতে পারে। পরীক্ষার সময় প্রতিটি ছাত্র যেমন তার প্রশ্নের উত্তরগুলো রিভিশন দেয় তেমনি করে তারাবীর মাধ্যমে মানুষের মনে প্রতি বছর জাগ্রত করে দেয়া হয় আল্ল¬াহর বিধানাবলী। এখন প্রশ্ন হচ্ছে আমাদের কি করা উচিত আর আমরা কি করছি। আমাদের সকলেরই জানা যে, প্রতিদিন তিন ওয়াক্তের ফরজ নামাযে কোরআনের আয়াত (নামাযী এককভাবে হোক অথবা জামাতে ইমাম সাহেব) উচ্চস্বরে পাঠ করে থাকেন। যা সুষ্পষ্ট এবং আরবী আয়াতগুলোর প্রতিটি বাক্য সকলেই বুঝতে পারেন। পাঁচ ওয়াক্ত নামাযের কোন সুন্নত নামায, জামাতে এবং তার আয়াতগুলো উচ্চস্বরে পাঠ করা হয়না। অথচ তারাবীর এই সুন্নত নামায জামাতে এবং প্রতি রাকাতের আয়াতগুলো উচ্চ স্বরে পাঠ করা হয়ে থাকে। পার্থক্য হচ্ছে আমাদের দেশে ফরজ নামাযের আয়াত সুষ্পষ্টভাবে শোনা যায় কিন্তু তারাবী নামাযের আয়াতগুলো যিনি পড়েন এবং পেছনে যদি আরেকজন হাফেজ বা অভিজ্ঞ কোরআন পাঠক থাকেন তিনি ব্যতীত আর কেহই বুঝতে পারেন না হাফেজ সাহেব কি পড়ছেন। ফরজ নামাযের আয়াত যেভাবে পাঠ করা হয় তারাবী নামাযের আয়াত সেভাবেই পাঠ করা উচিত নয় কি ? তাই যদি না হয় তাহলে আল্লাহর ঘর বেষ্টিত মসজিদুল হারাম এবং বিশ্বনবী মুহাম্মাদুর রসূলুল্লাহ (স.) এঁর রওজা বেষ্টিত মসজিদে নব্বীতে দু’ ঘন্টা সময় নিয়ে তারাবীর নামায আদায় হয় কেন? আমরা যারা রমযান মাসে ওখানে যাচ্ছি তারা সকলেই এ দীর্ঘ সময় ধরে ইমামের পেছনে নামায আদায় করেছি তা কারো অস্বীকার করার উপায় নেই। প্রথম প্রথম যারা গিয়েছি তাদের সবার মধ্যেই ভীতি ও শঙ্কার সৃষ্টি হয়েছিল এতো দীর্ঘ সময় ধরে নামায পড়তে পারবো কিনা? কিন্তু সালাতুল তারাবী যখন শুরু হলো তখন প্রথম রাকাতের আয়াত পাঠ শেষে ইমাম যখন রূকুতে যাচ্ছে তখন ব্যক্তিগতভাবে আমার মনে হলো যেন তাড়াতাড়ী রূকুতে গেলেন, আরও কিছু আয়াত পড়লো না কেন? এমনিভাবে ২০ রাকাত যখন শেষ হলো তখন মনে হয়নি যে ২ ঘন্টা ধরে নামায পড়েছি। এতে করে আমাদের কারো কোন কষ্ট বা পায়ে ব্যথা অনুভব হয়নি। দীর্ঘ সময় নামায পড়ায় কষ্ট না অনুভূত হওয়ার কারণ হচ্ছে ইমাম সাহেবদের সুরেলা কণ্ঠে উচ্চারিত কোরআনের প্রতিটি শব্দ/আয়াত যা ছিল পরিষ্কার এবং প্রতিটি মুসলমান নর নারীর বোঝার উপযোগী। তাঁদের কণ্ঠ যেমন আমাদের আকৃষ্ট করেছে তেমনি যেখানে যেখানে ভয়ের / আযাবের আয়াত পাঠ করেছে সেখানে তাদের কণ্ঠের ক্রন্দনভাব আমাদের আবেগে আপ্লুত করেছে। অনুরূপভাবে যেখানে ছিল রহমতের / আল্লাহর পথে চলার আহ্বান সেখানে তাদের কণ্ঠের অনুরূপ ভঙ্গি আমাদের আন্দোলিত করেছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!