শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৩:৪৩ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
হবিগঞ্জ জেলার অনলাইন নিউজ পোর্টালের মধ্যে অন্যতম ও সংবাদ মাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গণমাধ্যম দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডট কম-এ জরুরী ভিত্তিতে হবিগঞ্জ,নবীগঞ্জ,শায়েস্তাগঞ্জ,চুনারুঘাট,মাধবপুর,বাহুবল,বানিয়াচং,আজমিরিগঞ্জ,থানার সকল ইউনিয়ন,কলেজ, স্কুল থেকে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীগণ যোগাযোগ করুন নিম্ন ঠিকানায় ইমেইল করার জন্য বলা হলো। Email : shaistaganjnews@gmail.com Phone: 01716439625 & 01740943082 ধন্যবাদ, সম্পাদক দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ

মরমী কবি হাসন রাজার জন্মদিন আজ

দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ ডেস্ক ::
  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০১৪

kobid_1387603616_1-01এ এইচ এম হুমায়ুন মল্লিক : ১৮৯৭ সালে আসাম ও সিলেট জুড়ে এক বিরাট ভূমিকম্পের আবির্ভাব ঘটে। অত্র এলাকায় এর ধ্বংশলীলার ব্যাপকতার রেকর্ড এ পর্যন্ত

ছাড়িয়ে যায়নি। রিকটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৮.৮, চারদিকে একটা ভীতি কাজ করা শুরুকরল, মানুষ অনেক ভয় পেল। হাসন রাজার কচি মন তা

দেখে মরমী হয়ে উঠল, এমনি অস্পষ্ট মন নিয়ে হাসন রাজা যখন কয়েক বছর অতিক্রম করে ১৪ বছর বয়সে পা দিলেন ঠিক তখনই তার জীবনে

নেমে আসে ঘোর অমানিশা। বড়ভাই ওবায়দুর রাজা এবং ঠিক ৪০ দিন পরপরই বাবা আলী রাজাও ইহলোক ত্যাগ করেন। হাসন রাজার জীবনের

এই সন্ধিক্ষণে নিজেকে ক্ষোভ এবং তিথিক্ষার সঙ্গে প্রশ্ন করলেন ৭ বছরের সেই সংবাদের প্রেক্ষাপটে বাবা আমাকে কোথায় ঠকালেন।

কেনই বা বড় ভাই ওবায়দুর রাজা সমস্ত সম্পত্তির অধিকার থেকে বঞ্ছিত হলেন। এত তাড়াতাড়ি সমস্ত কিছুর অবসান ঘটলো কেন?

সত্যিকার অর্থে তাৎক্ষণিক এই বিয়োগান্তিক ঘটনাই হাসন রাজাকে মরমী হয়ে উঠতে অনুপ্রেরণা যোগায়। তখন হাসন রাজা উপায় না দেখে

দাপটের সঙ্গে জমিদারী চালাতে লাগলেন। কিন্তুএক আধ্যাত্নিক স্বপ্ন-দর্শন হাসন রাজার জীবন দর্শন আমূল পরিবর্তন করে দিল। হাসন

রাজার মনের দুয়ার খুলে যেতে লাগলো। তাঁর চরিত্রে এলো এক সৌম্যভাব। বিলাস প্রিয়জীবন তিনি ছেড়ে দিলেন। ভুল ত্রুটিগুলো শুধরাতে

শুরুকরলেন। জমকালো পোশাক পড়া ছেড়ে দিলেন। শুধুবর্হিজগত নয়, তার অন্তর্জগতেও এলো বিরাট পরিবর্তন। বিষয়-আশয়ের প্রতি

তিনি নিরাসক্ত হয়ে উঠলেন। তাঁর মনের মধ্যে এলো এক ধরনের উদাসীনতা। এক ধরনের বৈরাগ্য। সাধারণ মানুষের খোঁজ-খবর নেয়া হয়ে

উঠলো তাঁর প্রতিদিনের কাজ। আর সকল কাজের উপর ছিল গান রচনা। তিনি আল্লাহ্‌র প্রেমে মগ্ন হলেন। তাঁর সকল ধ্যান ধারণা গান হয়ে

প্রকাশ পেতে লাগলো। সেই গানে তিনি সুরারোপ করতেন, মরমীসাধনার বৈশিষ্ট্যই হচ্ছে জাতধর্ম আর ভেদবুদ্ধির উপরে উঠা। সকল ধর্মের

নির্যাস, সকল সম্প্রদায়ের ঐতিহ্যই আধ্যাত্ন-উপলব্ধির ভেতর দিয়ে সাধক আপন করে নেন। তাঁর অনুভবে ধর্মের এক অভিন্ন রূপ ধরা পরে-

সম্প্রদায় ধর্মের সীমাবদ্ধতাকে অতিক্রম করে সর্বমানবিক ধর্মীয় চেতনার এক লোকায়ত ঐক্যসূত্র রচনা করে। হাসন রাজার সঙ্গীত,

সাধনা ও দর্শনে এই চেতনার প্রতিফলন আছে। হিন্দুও মুসলিম ঐতিহ্যের যুগল পরিচয়তাঁর গানে পাওয়া যায়। অবশ্য মনে রাখা প্রয়োজন,

কয়েক পুরুষ পূর্বে হিন্দুঐতিহ্যের ধারা হাসন রাজার রক্তে প্রবহমান ছিল। হাসন রাজার মরমীলোকে সাম্প্রদায়িক বিভেদের ঠাঁই ছিলোনা।

তাই একদিকে ‘আল্লাজী’র ইশ্‌কে কাতর হাসন অনায়াসেই ‘শ্রীহরি’ বা ‘কানাই’-য়ের বন্দনা গাইতে পারেন। একদিকে হাসনের হৃদয়কান্নায়আপ্লুত

হয়,- ‘কি হইব মোর হাসরের দিন রে ভাই মমিন’,- আবার পাশাপাশি তাঁর ব্যাকুল আকাঙ্ক্ষা প্রকাশিত হয় এভাবে,- ‘আমি মরিয়া যদি পাই

শ্যামের রাঙ্গা চরণ’ কিংবা ‘দয়াল কানাই, দয়াল কানাই রে, পার করিয়া দেও কাঙ্গালীরে’। আবার তিনি বলেন,’ হিন্দুয়ে বলে তোমায়রাধা, আমি

বলি খোদা’। স্পষ্টই হাসনের সাধনা ও সঙ্গীতে হিন্দু-মুসলিম উভয় সম্প্রদায়ের পুরাণ ও ঐতিহ্যের সমন্বয় ঘটেছে। এ বিষয়ে তিনি ছিলেন

লালন ও অন্যান্য মরমী সাধকের সমানধর্মা। হাসন রাজা কোন পন্থার সাধক ছিলেন তা স্পষ্ট জানা যায় না। তাঁর পদাবলীতে কোন গুরুর

নামোল্লেখ নেই। কেউ কেউ বলেন তিনি চিশ্‌তিয়া তরিকার সাধক ছিলেন। সূফীতত্ত্বের প্রেরণা ও প্রভাব তাঁর সঙ্গীতে ও দর্শনে থাকলেও,

তিনি পুরোপুরি এই মতের সাধক হয়তো ছিলেন না। নিজেকে তিনি ‘বাউলা’ বা ‘বাউল’ বলে কখনো কখনো উল্লেখ করেছেন। তবে তিনি

বাউলদের সমগোত্রীয় হলেও নিজে আনুষ্ঠানিক বাউল ছিলেন না। সূফীমতের সঙ্গে দেশীয় লোকায়ত মরমীধারা ও নিজস্ব চিন্তা-দর্শনের

সমন্বয়ে তাঁর সাধনার পথ নির্মিত হয়বলে অনেকে বিশ্বাস করেন। তাঁর সঙ্গীত রচনার পশ্চাতে একটি সাধন-দর্শনের প্রভাব বলা যায়। হাসন

রাজার কোনো কোনো গানে স্থান-কাল-পাত্রের পরিচয় চিহ্নিত আছে। লক্ষণছিরি ও রামপাশা-তাঁর জন্মগ্রাম ও জমিদারী এলাকার

উল্লেখ বারবার এসেছে। পাওয়া যায় সুরমা ও আঞ্চলিক নদী কাপনার নাম। কোন কোন গানে প্রসঙ্গ হিসেবে নিজেই উপস্থাপিত হয়েছেন।

দিলারাম নামে তাঁর এক পরিচারিকা, বেনামে সাধনসঙ্গিনী, মাঝে মাঝে তাঁর গানে উপস্থাপিত হয়েছেন,হাসন রাজা মুখে মুখে গান রচনা করতেন,

আর তাঁর সহচরবৃন্দ কী নায়েব-গোমস্তা সে সব লিখে রাখতেন। তাঁর স্বভাব কবিত্ব এসব গানে জন্ম নিত, পরিমার্জনের সুযোগ খুব একটা

মিলতনা। তাই কখনো কখনো তাঁর গানে অসংলগ্নতা, গ্রাম্যতা, ছন্দপতন ও শব্দপ্রয়োগে অসতর্কতা লক্ষ করা যায়। অবশ্য এই ত্রুটি

সত্ত্বেও হাসন রাজার গানে অনেক উজ্জ্বল পংক্তি, মনোহর উপমা-চিত্রকল্পের সাক্ষাৎ মেলে। তাঁর কিছুগান, বিশেষ করে ‘লোকে বলে,

বলেরে, ঘরবাড়ি ভালা নাই আমার’, ‘মাটির পিঞ্জিরার মাঝে বন্দী হইয়ারে’, ‘আঁখি মুঞ্জিয়া দেখ রূপরে’, ‘সোনা বন্ধে আমারে দেওয়ানা

বানাইল’, ‘মরণ কথা স্মরণ হইল না হাসন রাজা তোর’, ‘আমি যাইমুরে যাইমুআল্লার সঙ্গে’, ‘কানাই তুমি খেইর খেলাও কেনে’, ‘একদিন তোর

হইব রে মরন রে হাসন রাজা’- সমাদৃত ও লোকপ্রিয়শুধুনয়, সঙ্গীত-সাহিত্যের মর্যাদাও লাভ করেছে।

মরমী কবি হাসন রাজাকে তাহলে কেন আমি দার্শনিক বলব? তিনি তো স্বশিক্ষিত একজন বাউল কবি। নিজেকে নিজেই আউলা-বাউলা বা পাগল

বলেছেন। তার পরেও জাতীয় অধ্যাপক হাসন রাজা পৌত্র দেওয়ান মোহাম্মদ আজরফ তাকে সুফি দার্শনিক বলে আখ্যায়িত করেছেন। তিনি

তাকে বাউল না বলারও নির্দেশ প্রদান করেছেন কোন কোন লেখায়। এতে করে হাসন রাজাকে একটা বৃহৎ পরিধি থেকে নামিয়ে আনা হয়েছে এবং

তাকে বন্দি করা হয়েছে সংকীর্ণতার বেড়াজালে। হাসন রাজার উত্তরসূরীদের কাছ থেকে এবং গ্রাম্য প্রত্যক্ষদর্শীদের মাধ্যমে জানা যায়

তিনি জীবনের কোন এক সময়ে কোন এক পীরের বাড়িতে যেতেন এবং সেখানে দিন যাপনও করতেন। তার সূত্র ধরে যদি তাকে সেই পীরের

অনুসারী বানানো হয় তাহলেও হাসন রাজাকে আরেকটি অতি ক্ষুদ্র পরিসরে বন্দি করে দেওয়া হয়। তাহরে হাসন রাজা আসলে কি। তিনি কী

বাউল-সুফী নাকি একজন গাতক। তিনি কোড়া পাখি শিকার করতেন। কোড়া একটা হাওড়ী পাখি। এরা মাঠে মাঠে ঘুরে বেড়ায়। কেবল মাত্র

মাংস খাওয়ার বাসনায় হাসন রাজা কুড়া শিকার করতেন না। কোড়া শিকার করতেন না বলে বলা যুক্তিযুক্ত হবে কোড়া ধরে সংগ্রহ করতেন।

একটা কোড়া যদি পোষ মানানো যায়তাহলে এই কোড়া দিয়ে অন্য একটি বন্য কোড়া শিকার করা খুবই সহজ। কোড়া পাখি শিকারের জন্য

কিছুফাঁদ ব্যবহার করা হয়। ফাঁদ পেতে কোড়া শিকার করার চেয়ে একটা কোড়ার মাধ্যমে অন্য একটি কোড়া ধরা সহজ ব্যপার। কোড়ারা

যুদ্ধ করতে পছন্দ করে। শক্তিশালী কোড়া বনে গিয়ে ডাকতে শুরুকরে। তার ডাক শুনে অন্য একটি কোড়া আসে। তখন শুরুহয় যুদ্ধ।

শক্তিশালী কোড়া অপেক্ষাকৃত দুর্বল কোড়াকে চেপে ধরে রাখে। আর যদি শক্তিশালী কোড়াটির মালিক থাকে সে তখন অপোষ্য

কোড়াটিকে বন্দি করে। এভাবেই হাসন রাজা কোড়া শিকার করতেন। তিনি কোড়া শিকার করতেন এবং এদেরকে যত্ব সহকারে লালন-পালন

করতেন। আরো একটি মজার তথ্য হলো, তিনি প্রত্যেকটি কোড়ার নামকরণও করতেন। কিংবদন্তিতে আছে তিনি মোট ১৭৮টি কোড়া

পালন করেছেন যাদের প্রত্যেকটির স্বতন্ত্র নাম রয়েছে। পৃথিবীতে মানুষের আগমন একটা স্বল্প সময়ের মাত্র। এখানে কেউই চিরস্থায়ী নয়।

এবং মানবিক বোধকে তিনি উচ্চ স্তরে স্থান দিয়েছেন যেখানে মমত্ব, ভ্রাতৃত্ব সংহতি এবং সহনশীলতাবোধের গভীর দিকদর্শন রয়েছে, যার

সাথে পরিচিত না হয়ে পারা যায় না। হাসন রাজার জীবন ও দর্শন গবেষণার সার্থে বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় ‘কবি কাজী রোজী’কে প্রশ্ন

করলে তিনি বলেছিলেন, ‘হাসন রাজার গান বাদ দিয়ে আমরা থাকতে পারি না। তার গান বুঝতে গেলে আগে তার চলনটা বুঝতে হবে। কোথায়তার

বাস, তার এলাকাটা তার সম্পর্কে কি বলে, তার নদীটা তার সম্পর্কে কি বলে, সেখানকার গাছ-পাতা-পক্ষী কি বলে তা বুঝতে হবে।’ হাসন রাজার

আদি পুরুষ রামচন্দ্র সিংহ দেব ভারতের উত্তর প্রদেশের রায়বেরিলীতে বাস করতেন। কথিত আছে রামচন্দ্র ছোট রাজ্যে এক শান্তিময়

পরিবেশ সৃষ্টি করে রাজ্য পরিচালনা করছিলেন। এবং সে জন্যই তার নামটি পরবর্তীকালে স্মৃতি হিসেবে ধরে রাখা হয়েছে। রামচন্দ্রের অধস্থন

কোন এক পুরুষ রায়বেরিলী থেকে অযোদ্যায় বসতি স্থাপন করে সেখানে কাল অতিক্রম করছিলেন। পরবর্তী কালে ষাড়শ শতাব্দির দিকে এই

পরিবারেরই এক সদস্য রাজা বিজয়সিংহ দেব অযোদ্যা ত্যাগ করে এদেশে আগমন করেন এবং বর্তমান বাংলাদেশের যশোহর জেলার কাগদি বা

কাগদিঘী গ্রামে প্রথম বসতি স্থাপন করেন। তাই এটা স্পষ্ট যে, হাসন রাজার পূর্ব পুরুষেরা অযোধ্যার অধিবাসী ছিলেন। জাতিতে ছিলেন

আর্যগোষ্ঠীর ক্ষত্রিয় শাখার অন্তর্ভূক্ত। এই খ-রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা রাজা বিজয় সিংহ দেবের অধস্তন পুরুষ রাজা রনজিৎসিংহ দেব

পারিবারিক কলহহেতুকনিষ্ঠ সহোদরের শত্রুতায় বাধ্য হয়ে সিলেট জেলার সদর মহকুমার অন্তর্গত এলাকাধীন কুনাউড়া পরগণায় আশ্রয়

গ্রহণ করেন। তার বংশধর রাজা রঞ্জিত রায় রামপাশা গ্রামের পত্তন করে দৌলতখানা স্থাপন. করেন। তার অধস্তন পুরুষে জন্মগ্রহণ

করেন বানারসী রাম সিংহ দেব। বানারসী রামের একমাত্র পুত্র বীরেন্দ্র চন্দ্র সিংহ দেব তথা বাবুরায় পরবর্তীতে ধর্মান্তরিত হয়ে বাবুখা

উপাধি লাভ করেন। তার সন্তান দেওয়ান আনোয়ার খা চৌধুরীর পুত্র দেওয়ান আলী রাজা কয়েক পুরুষ পর রামপাশা হতে সুনামগঞ্জের

নিকটবর্তী লক্ষণশ্রী গ্রামে বাসস্থান প্রতিষ্ঠা করেন। সেই লক্ষণশ্রীতেই ১৮৫৪ সালে দেওয়ান হাসন রাজার জন্ম হয়। শিশুকাল থেকে মৃত্যু

পর্যন্ত এই লক্ষণশ্রীই ছিল তার সবচেয়ে প্রিয় জায়গা। তাইতো তিনি গেয়েছেন- “কতদিন থাকিবায় লক্ষণছিরিরে হাসন রাজা/ ও রাজা

কতদিন থাকিবায় লক্ষণছিরি।/আখেরাতে যাইতে হইবে, একদিন মরিবে।/ হাসন রাজা কতদিন থাকিবে লক্ষণছিরি।” হাসন রাজার বয়স যখন ৭

বছর ঠিক সে সময়, তাকে এই সংবাদ দেওয়া হয় যে, তাঁর ২২ বছর উর্দ্ধ বয়স্ক বড় ভাই দেওয়ান উবায়দুর রাজা বাবার সমস্ত সম্পত্তির

একমাত্র অধিকারী হতে যাচ্ছেন। এমন সংবাদে শিশুহাসনের অনুভূতিতে কিছুঅস্পষ্ট জিজ্ঞাসার সূত্রপাত ঘটে। হাসন রাজার এই শিশুমনে তাই

একটি প্রশ্নে অবতারণা হয়েছে যে, ‘বাবা আমাকে তার সম্পত্তি দেবেন না কেন, কেনই বা কম দেবেন? আমিতো ছোট। কেনই বা বড় ভাই

ওবায়দুর রাজা সমস্ত সম্পত্তির অধিকার থেকে বঞ্ছিত হলেন। এত তাড়াতাড়ি সমস্ত কিছুর অবসান ঘটলো কেন? সত্যিকার অর্থে

তাৎক্ষণিক এই বিয়োগান্তিক ঘটনাই হাসন রাজাকে মরমী হয়ে উঠতে অনুপ্রেরণা যোগায়।এ পৃথিবী ছেড়ে যে চলে যেতে হবে সেই আভাস হাসন

রাজা পূর্বেই পেয়েছিলেন। একজন দার্শনিক এবং জীবন সম্পর্কে সত্যিকারের সচেতন গবেষকই সাধারণত তার মৃত্যুর সময় সম্পর্কে ধারণা

লাভ করে। তাইতো হাসন গেয়েছেন- আমি যাইমুরে যাইমুআল্লার সঙ্গে/ হাসন রাজা আল্লা বিনে কিছুনাহি মাঙ্গে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 shaistaganj.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarshaista41
error: Content is protected !!