JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
logo shaistaganj
,
sanvi stor
সংবাদ শিরোনাম :
«» নিজামপুরে ধানের শীষের সমর্থনে জনসভা অনুষ্ঠিত «» শায়েস্তাগঞ্জের বিশিষ্ঠ মুরুব্বী জিতু মিয়া আর নেই, জানাযায় মুসল্লির ঢল «» চুনারুঘাটে ইউনিসেফের যৌথ পরিদর্শনে বিদ্যুৎ সংযোগ পেয়েছে সুন্দরপুর কমিউনিটি ক্লিনিক «» নিখোঁজের দেড় মাস পর নবীগঞ্জে গৃহবধূর কংকাল উদ্ধার, আটক ১ «» অলিপুরে ট্রাক-মোটর সাইকেল মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১ «» বাহুবলে নানা আয়োজনে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালন «» শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণে হবিগঞ্জে আলোক প্রজ্বলন «» নবীগঞ্জে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু «» নাসিরনগরে মহাজোট প্রার্থী বিএম ফরহাদ হোসেন সংগ্রামের নির্বাচনী সভা অনুষ্ঠিত «» নাসিরনগরে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা

চুনারুঘাটে ভূয়া সংবাদকর্মীর পরিচয়ে মাদক ব্যবসা : অতঃপর আটক

২৩১২

আজিজুল ইসলাম সজীব,হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : আইনশৃংখলা বাহিনীর চলমান মাদকবিরােধী অভিযানের পরও বদলায়নি মাদক ব্যবসায়ীদের স্বভাব। বন্ধ হয়নি মাদকের চালান। এত সাড়াাশি অভিযানের মধ্যে আবার নিত্য নতুন ভিন্ন কৌশলে মাদক পাচার করছে ব্যবসায়ীরা।

এমনি এক মাদক ব্যবসায়ী ধৃত হল হবিগঞ্জের চুনারুঘাট থানা পুলিশের হাতে মিজানুর রহমান সুমন নামে এফআইর টিভির ডাইরেক্টর কো অর্ডিনেটর এলাকা সমগ্র বাংলাদেশ নামে ভূয়া সাংবাদিক ৭ কেজি গাজার মামলার দীর্ঘ দিন ধরে পলাতক আসামী।

গত বৃহস্পতিবার গভীর রাতে চুনারুঘাট স্থানীয় মধ্য বাজার থেকে চুনারুঘাট থানা পুলিশের এএসআই শরীফ তাকে গ্রেফেতার করেন। কথিত এই ভূয়া সাংবাদিক ইতিপূর্বেও ১০ আগষ্ট পৌরসভার হাতুন্ডা এলাকায় এসআই সুমনোর রহমান এবং এএসআই শরীফের নেতৃত্বে একদল পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালালে কথিত এই ভূয়া পরিচয় দান কারী এবং তার শ্যালক বি-বাড়ীয়া জেলার নাসিরনগর থানার ধরমন্ডল গ্রামের হাছন আলীর পুত্র শাহজাহান (৩৫) কে গাজাসহ পাচারকালে গ্রেফতার হয়েছিল।

পরে তারা জামিনে এসেই আবারও শুরু করে নিত্য নতুন আর বিভিন্ন অভিনব কায়দায় মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছিল।

ভূয়া পরিচয় দান কারী

পুলিশ জানায় , চুনারুঘাট পৌরসভার চন্দনার মৃত আব্দুল গফুরের ছেলে মিজানুর রহমান সুমন(৩০) উপজেলার সীমান্ত এলাকাসহ জেলার বিভিন্ন স্থানে গাজা পাচারের উদেশ্যে নোহা গাড়ি যার গাড়ি নং ঢাকা মেট্রো – চ ১১ -৬১৬৪ । সুমন তার শশুর বাড়ি বি- বাড়িয়ায় থেকে গাড়ি যোগে সে দীর্ঘদিন মাদকের বড় বড় চালান চুনারুঘাট আনা-নেয়া করে
আসছিলো। সে পুলিশের কাছ থেকে বাচতে সুমন সাংবাদিকের স্টিকার লাগিয়ে এবার ব্যবসায় নামছে, পুলিশে ধরলে সাংবাদিক পরিচয়ে এড়িয়ে যেত । সে তার সঠিক পরিচয় গোপন করে দেশের বিভিন্ন জেলায় বিলাস বহুল গাড়ি যোগে মাদক পাচার পুলিশের নজরে আসে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে থানার একদল পুলিশ মিজানকে গ্রেফতার করেন।

একাধিক সুত্রে জানাগেছে সুমনের বিরোদ্ধে মাদক ব্যবসা ছাড়াও চুরি ডাকাতিরও অভিযোগ রয়েছে, উক্ত চক্রটি সময়ে গোয়েন্দার লোক আর কখনো মানাধিকার সাংবাদিক পরিচয়ে দিয়ে মাদক ব্যবসা করে আসছে বলে জানাগেছে।

মাদক মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জানান, চক্রটি অনেক দিন থেকে মাদক বহরের সাথেজড়িত আমাদের কাছে তথ্য ছিল আমরা তাদের সঙ্গী সবকটিকে ধরার চেষ্টা করছি। সে বিভিন্ন বিভিন্ন জেলায় এভাবেই মাদক বহন করে আসছে। শ্যালক শাহজাহান বলে তার দুলাভাই সুমন সর্বশেষ তার নিজ এলাকায় মাদক সে চুক্তিতে তার বিপুল পরিমান মাদক বি- বাড়িয়া থেকে চুনারুঘাটে আনে।

বি-বাড়িয়া থেকে আনা এসব মাদক মাধবপুর সাতছড়ি হয়ে চুনারুঘাট তার বোনের স্বামীর বাড়ি সুমনের ঘরে রেখে হবিগঞ্জ জেলায় বিক্রি করে আসছে। আর শ্যালক শাহজাহান তার নিজ জেলা বি-বাড়িয়ায় তার সংর্ঘব্ধ দল নিয়ে বিক্রি করে আসছে বলে পুলিশের কাছে স্বীকার
করে। মাদক ব্যবসায়ী সুমন ব্যবসার সুবাদে তার মাদক ব্যবসায়ী পার্টনার শাহজাহানের বোন কে বিয়ে করে মাদক ব্যবসা আরো জমিয়ে তুলেছে বি-বাড়ীয়া জেলায়।

সুমন ধরমন্ডল এলাকায় মাদক ব্যবসায় তার বেশ পরিচিতি রয়েছে, আর এই মাদক ব্যবসায় তার সহযোগী হিসেবে সহযোগিতা করে তারই শ্যলক শাহজাহান দু-জনে মিলে চুনারুঘাট ও বি-বাড়ীয়া মাদক ব্যবসায় নেতৃত্ব দিয়ে আসছে।

ইদানিং বেশ কিছু দিন ধরে চুনারুঘাট উপজেলা দিয়ে মাদক ব্যবসায়ীসহ মাদকের বড় চালান পাচারকালে আটক হয়। এ ঘটনা শুনে জেলা জুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

এ ব্যাপারে চুনারুঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কেএম আজমিরুজ্জামান জানান ,সুমন দীর্ঘদিন ধরে সংবাদ-কর্মী হিসেবে পরিচয় দিয়ে ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছিল। গোপন সংবাদে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী নিশ্চিত হওয়ার পর অভিযান চালিয়ে হাতেনাতে আটক করতে সক্ষম হওয়া গেছে। তিনি বলেন, পুলিশের হাত থেকে বাঁচতে নিজেকে সাংবাদিক পরিচয় দিত । কিন্তু তল্লাাশি চালিয়ে তার কাছ থেকে নাম সর্বস্ব একটি অনলাইন এফআই আর টিভির আইডি কার্ড উদ্ধার করা হয়। তার বিরোদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ২টি মামলা রয়েছে।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *