JavaScript must be enabled in order for you to see "WP Copy Data Protect" effect. However, it seems JavaScript is either disabled or not supported by your browser. To see full result of "WP Copy Data Protector", enable JavaScript by changing your browser options, then try again.
logo shaistaganj
,
ইসলামী একাডেমি এড
সংবাদ শিরোনাম :
«» লাখাইয়ে ১২ ডাকাতি মামলার আসামী গ্রেফতার «» চুনারুঘাটে ২০০ শিক্ষার্থীর মধ্যে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ «» বাহুবলে মহাসড়কে দুই ট্রাকের সংঘর্ষে নিহত ২ «» মাধবপুরে জাতীয় হাত ধোয়া দিবস পালিত «» আজমিরীগঞ্জে কলেজ শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার «» শায়েস্তাগঞ্জে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ডাকাত নিহত, ৪ পুলিশ সদস্য আহত «» অলিপুরে দুই মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১ «» আগামী ২০ অক্টোবর শায়েস্তাগঞ্জ ব্যকস-এর ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন «» শায়েস্তাগঞ্জে কলেজ ছাত্র অনতু ও প্রান্তকে হত্যাচেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন «» বাহুবলে উপজেলা প্রশাসনের প্রেস ব্রিফিংঃ ইজারা শর্ত অনুসরণ করতে বালু ব্যবসায়ীদের প্রতি নির্দেশ

শাহজীবাজারে বাউল গানের নামে মাদক সেবন ও অসামাজিক কাজের অভিযোগ

received_1151286448395168

স্টাফ রিপোর্টার :  বাউল গান মানুষের অন্তরের কষ্ট মুছে দেয় বলে শোনা গেলেও বর্তমানে এ গান মানুষের কষ্টের কারণ হয়ে দাড়িয়েছে। বাউল গানের দোহাই দিয়ে একশ্রেণীর অসাধু লোক মদ, গাঁজাসহ অশ্লীলতার আসর জমিয়ে যুবসমাজকে বিপথগামী করছে, পাশাপাশি এলাকার পরিবেশ নষ্ট করছে।

জানা যায়, হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর উপজেলার শাহজীবাজারে শাহ সুলতান সৈয়দ ফতেহ্ গাজী (রাঃ) মাজারে বাউল গানের আসর বসানোর ওপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। কিন্তু এক শ্রেণির লোক সপ্তাহে এক বা দুই দিন স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে বাউল গানের আসর বসাচ্ছে।

 স্থানীয় লোকজন বলছেন, গান যদি গানের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকতো তাহলে আপত্তির কিছু ছিলো না।

 প্রতি সপ্তাহের মতো বৃহস্পতিবার রাতে বাউল গানের আসর বসালেও দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র। বেসামাল প্রকৃতির রমণীদের নিয়ে আসা হয় গান শোনানোর জন্য। গান শোনানোর অজুহাতে তারা নৃত্য দেখিয়ে আসরে আগতদের কাছ থেকে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়।

এ ছাড়া গানের আসরের পাশে বসানো হয় মদ, গাঁজা, ইয়াবাসহ মাদকের আসর।

 প্রসঙ্গত, শুধু ফতেহ গাজির মাজার নয়, পাশের চুনারুঘাট উপজেলার বিভিন্ন স্থানেও বাউল গানের দোহাই দিয়ে এ ধরনের আসর বসে। আসরের সামনের সারিতে বসানো হয় অশ্লীল নৃত্য শিল্পীদের আর তাদের পেছনে বসানো হয় সমাজের মুখোশধারী সমাজপতিদের। গান শুরু হওয়ার আগেই শিল্পীদের মন জয় করতে টাকা পরিবেশনকারী ব্যক্তিরা অবশ্য নেশায় আসক্ত হয়ে মাতাল বনে যান। গান শুরু হলে ওইসব ব্যক্তিরা অশ্লীল শিল্পীদের টাকা দিতে শুরু করেন। শিল্পীরা তাদের অঙ্গভঙ্গি মেলে ধরলে টাকার অংকটা আরো বাড়িয়ে দেয়া হয়। কোনো কোনো সময় গান শেষে গভীর রাতে অসামাজিক কার্যকলাপেরও খবর পাওয়া যায়।

এ ব্যাপারে প্রতিবাদে করার যেনো কেউ নেই। স্থানীয় সচেতন লোকজন এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রশাসনের নিকট দাবি জানিয়েছেন।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *